মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী অনুপাত প্রথা জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ পরিপন্থী।

165

 

শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। তারই আলোকে বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ২০১০ খ্রিঃ শিক্ষার উন্নয়ন বাস্তবায়ন করার জন্য, জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়ন করে অনুমোদন করেছেন।তিনি ভাল করে বুঝতে পেরেছিলেন, দেশের শিক্ষা বিভাগকে সুনির্দিষ্ট ভাবে অগ্রসর করতে হলে, নির্দেশনার বড় প্রয়োজন। সেই জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ আলোকে বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা, অগ্রসর হয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ শিক্ষার সকল দিক ২৮ টি অধ্যায় এবং ২ টি সংযোজনীর মাধ্যমে পরিপূর্ণ রূপ লাভ করে। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এর অধ্যায় নং ২৭,পাতা নং ৬২, বিষয়ঃ শিক্ষা প্রশাসন এর “কৌশল” পাতা নং ৬৩,পয়েন্ট নং ০৩ যার শিরোনাম” এমপিওভুক্ত সকল ধারার প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের নিয়োগ, প্রশিক্ষণ, বদলি ও পদোন্নতি ” ৩ নং ধারা/ উপধারা যে নামই হোক না কেন তাতে স্পষ্ট রয়েছে, প্রভাষক থেকে সহকারি অধ্যাপক,সহকারি অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক,সহযোগী অধ্যাপক থেকে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেয়া হবে। সেখানে কোন অনুপাত প্রথা কিংবা কোন % শব্দ, দেশের প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ জাতীয় শিক্ষানীতি কমিটি বলেন নাই।আর এই শিক্ষানীতি ২০১০ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বাক্ষর দিয়ে অনুমোদন করেছেন। ২০১৮ সালে এমপিও নীতিমালা কমিটির সদস্যগণ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনকৃত এবং জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ কমিটির প্রণয়নকৃত শিক্ষানীতি তোয়াক্কা না করে, এমপিওভুক্ত প্রভাষকগণের সহকারি অধ্যাপক পদোন্নতি অনুপাত প্রথা প্রতিস্থাপন করেন।যা জাতীয় শিক্ষানীতির পরিপন্থী। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন করার পর, শিক্ষা বিভাগ বিতর্ক মুক্ত হয়েছিল।এমপিও নীতিমালা ২০১৮ চুড়ান্ত করার পর দেখা গেলো, জাতীয় শিক্ষানীতির কারনে শিক্ষা বিভাগের মিমাংশিত বিষয় সমূহ আবার বিতর্কিত হলো। এমপিও নীতিমালা ২০১৮ কমিটি একজন দায়িত্বরত প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনকৃত, জাতীয় শিক্ষানীতিকে পরিহাস / অবমূল্যায়ন করা সঠিক হয়নি। বর্তমানে বিতর্কিত নীতিমালা ২০১৮ সংশোধনের উদ্যােগ আপনি গ্রহণ করেছেন।এই সংশোধনীতেও যদি এমপিওভুক্ত প্রভাষকদের পদোন্নতিতে অনুপাত প্রথা কিংবা % থেকে যায়, তা হবে জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ পরিপন্থী। দেশের প্রভাষক সমাজ মনেকরে, আপনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একজন বিশ্বস্ত ব্যক্তি হিসেবে, প্রভাষকদের পদোন্নতিতে অনুপাত প্রথা কিংবা % প্রথা বাতিল করে,মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার অনুমোদনকৃত জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ প্রতি সম্মান রাখবেন।
লেখকঃ প্রভাষক মোহাম্মদ আলী শামীম সমন্বয়ক পদোন্নতি বঞ্চিত প্রভাষক সমাজ কেন্দ্রীয় কমিটি।